“নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর নেতৃত্বে বাবুরহাট ও মাধবদীর ব্যবসায়ীবৃন্দের উদ্যোগে ” মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল” এবং “জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা তহবিল” বরাবর অনুদানের চেক হস্তান্তর”

আজ ২৯ জুলাই ২০২০ নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর নেতৃত্বে বাবুরহাট ও মাধবদীর ব্যবসায়ীবৃন্দের…

চামড়া মূল্য নির্ধারণ : প্রতি বর্গফুট গরুর ৩৫, খাসি ১৩ টাকা

নিউজ ডেস্ক: ঈদকে সামনে রেখে কোরবানির পশুর চামড়া সংগ্রহের জন্য দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার; পশু…

চট্টগ্রাম বন্দরে ভারতের প্রথম পণ্যবাহী জাহাজ

নিউজ ডেস্কঃ চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছে ভারতের পণ্য পরিবহনকারী জাহাজ ‘এমভি সেজুঁতি’। আজ মঙ্গলবার ভোরে পণ্যবাহী…

এক ব্যক্তি কোম্পানী খোলার সুযোগ রেখে কোম্পানী আইনের খসড়ার অনুমোদন

নিউজ ডেস্ক: দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য এবং বিনিয়োগকে আরো এগিয়ে নিতে ‘এক ব্যক্তি কোম্পানি’ খোলার সুযোগ রেখে কোম্পানী…

২২ দিন পর মিয়ানমার থেকে টেকনাফে পণ্যবাহী ট্রলার

নিউজ ডেস্কঃ করোনার প্রভাবে ২২ দিন বন্ধের পর কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে মিয়ানমারের আকিয়াব বন্দর থেকে…

করোনাকালে সরকারি ব্যয়ে মিতব্যয়ী হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিউজ ডেস্ক :    করোনা পরিস্থিতির কারণে দেশে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড কমে গেছে। রাজস্ব আদায়ও কাঙ্ক্ষিত হারে…

লক্ষ্যমাত্রা ছড়িয়ে ১১৫ কোটি টাকা মুনাফায় মোংলা বন্দর

নিউজ ডেস্কঃ বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) তেমন কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি দেশের দ্বিতীয় সমুদ্রবন্দর মোংলা বন্দরে। করোনা পরিস্থিতি শুরু হওয়ার পর থেকে নানামুখী পদক্ষেপের কারণে বন্দরের সব কার্যক্রম সচল রয়েছে। ফলে সদ্য শেষ হওয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৯১ কোটি ৯৬ লাখ ৩১ হাজার টাকা মুনাফার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হলেও এ সময়ে ১১৫ কোটি ১৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা মুনাফা অর্জন করেছে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ। মোংলা কাস্টমস ও বন্দর কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৯০৩টি বাণিজ্যিক জাহাজ বন্দরে ভেড়ে এবং ১ কোটি ১০ লাখ টন পণ্য হ্যান্ডলিং হয়। একই সঙ্গে ৫৯ হাজার ৪৭৬টি ইউজ কনটেইনার হ্যান্ডলিং হয়। এ অর্থবছরে আমদানি-রফতানি খাতের পণ্য হ্যান্ডলিং করে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের আয় হয়েছে ৩২০ কোটি ৬০ লাখ টাকা। এর মধ্যে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদি, সংস্কার ও উন্নয়নকাজে ২০৫ কোটি টাকা ব্যয় হওয়ার পরও ১১৫ কোটি ১৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা মুনাফা করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক বেশি। এর আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৯১২টি দেশী-বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজ এ বন্দরে আসে। হ্যান্ডলিং হয় ১ কোটি ১৩ লাখ টন বাল্ক কার্গো এবং ৫৭ হাজার ৭৩২টি ইউজ কনটেইনার। এতে এ সময় বন্দর কর্তৃপক্ষ ১৩৩ কোটি টাকা মুনাফা অর্জন করতে সক্ষম হয়। এ বিষয়ে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এম শাহজাহান বলেন, ২০১৯-২০ অর্থবছরে বন্দরের আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯১ কোটি ৯৬ লাখ ৩১ হাজার টাকা। লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে আমাদের মুনাফা হয়েছে ১১৫ কোটি ১৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বন্দরের এ ধারা অব্যাহত থাকবে বলেও এ সময় মন্তব্য করেন তিনি। তিনি আরো বলেন, করোনা পরিস্থিতি শুরু হওয়ার পর থেকে আমরা কখনো বন্দরের সেবা বন্ধ রাখিনি। সবসময় বন্দর সচল ছিল। আসলে করোনার প্রভাবে সড়কপথে বেশকিছু ঝামেলা ছিল। বন্দরে পণ্য আনা-নেয়া ও সরবরাহের ক্ষেত্রে সড়ক ও নৌপথে যাতে কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না হয়, সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সব দপ্তরের সঙ্গে সমন্বয় করেছি। ফলে বন্দরের পণ্য আনা-নেয়ার ক্ষেত্রে কোনো ব্যাঘাত ঘটেনি। এছাড়া করোনা পরিস্থিতিতে বন্দরের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী নিরলস পরিশ্রম করেছেন। আমাদের কার্যক্রম আরো সামনের দিকে এগিয়ে নিতে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির জন্য কাজ চলছে।

বেনাপোলে এক বছরে আমদানি কমেছে ৫৮ হাজার ৩২৫ টন

নিউজ ডেস্কঃ বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে আগের অর্থবছরের তুলনায় সদ্য শেষ হওয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৫৮ হাজার ৩২৫ টন পণ্য আমদানি কমেছে। এতে সরকারের রাজস্ব আহরণেও দেখা দিয়েছে বড় ধরনের ঘাটতি। কাস্টমস কর্মকর্তারা করোনার প্রভাবকে দায়ী করলেও আগে থেকেই বন্দরটি দিয়ে আমদানি কমতে থাকে। এর অন্যতম কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, কাস্টমের নানামুখী হয়রানি আর বন্দরের অবকাঠামোগত সমস্যার জন্য আমদানিকারকরা বেনাপোল থেকে সরে আসছেন। বেনাপোল কাস্টম অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ১৭ লাখ ৭৮ হাজার ৬২৮ টন বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি হয়েছে। যেখানে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ভারত থেকে আমদানির পরিমাণ ছিল ১৮ লাখ ৩৬ হাজার ৯৫৩ টন পণ্য। আর ২০১৭-১৮ অর্থবছরে আমদানি হয় ১৯ লাখ ৮৮ হাজার ৩৯৭ দশমিক ৯৩ টন। অন্যদিকে গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে বেনাপোল কাস্টম হাউজ থেকে ভারত হতে আমদানি হওয়া পণ্যের ওপর প্রাথমিকভাবে ৬ হাজার ২৮ কোটি ৩৪ লাখ টাকা রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। পরে সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে এটির পরিমাণ দাঁড়ায় ৫ হাজার ৯৯৫ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। তবে এ সময় লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ আদায় করে মাত্র ২ হাজার ৫৩৭ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। সেই হিসাবে এখানে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে রাজস্ব ঘাটতি হয়েছে ৩ হাজার ৪৫৮ কোটি ১২ লাখ টাকা। এর আগেও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বেনাপোল কাস্টম হাউজে ১ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা রাজস্ব ঘাটতি ছিল। ওই অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা দেয়া হয়েছিল ৫ হাজার ১৮৫ কোটি টাকা। আদায় হয়েছিল ৪ হাজার ৪০ কোটি টাকা। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ হাজার ১৯৫ কোটি ৮৮ লাখ টাকা, যার বিপরীতে আদায় হয়েছিল ৪ হাজার ১৬ কোটি ২৪ লাখ টাকা। সেবারও লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে রাজস্ব ঘাটতি ছিল ১৭৯ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, কম শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি হলে রাজস্ব কমবে এটা স্বাভাবিক। কাস্টমের জটিলতার কারণে গাড়ির চেসিস, মোটরপার্টসসহ শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি কমে গেছে। আবার নভেল করোনাভাইরাসের প্রভাবে তিন মাস আমদানি-রফতানি হয়নি। যে কারণে বাণিজ্য কার্যক্রমে পিছিয়ে পড়ছে বেনাপোল। বেনাপোল আমদানি-রফতানি সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি আমিনুল হক জানান, দিন দিন আমদানি পণ্যের ওপর অযৌক্তিক হারে শুল্ককর বাড়ছে। এতে বৈধভাবে আমদানি কমে বাড়ছে শুল্ককর ফাঁকি দিয়ে পণ্য পাচার। শুল্কহার স্বাভাবিক পর্যায়ে রাখা হলে বৈধ পথে আমদানি বাড়বে। এতে বাড়বে রাজস্ব আয়। তবে এবার করোনার কারণে আমদানি কমে গেছে। যশোর চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান খান বলেন, বেনাপোল বৃহৎ বন্দর হলেও এর কোনো সুফল আমরা পাচ্ছি না। বাণিজ্য প্রসার করতে হলে বৈধ সুবিধা ও অবকাঠামো উন্নয়নের বিকল্প নেই। বাণিজ্য প্রসার করতে হলে বেনাপোলে সব ধরনের হয়রানি মুক্ত করা প্রয়োজন। করোনার কারণে আমদানি কমে গেছে। কিন্তু গেল অর্থবছরের শুরু থেকে বেনাপোল দিয়ে সব ধরনের আমদানি কমতে শুরু করে। যে কারণে রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি নেমে এসেছে। এ ব্যাপারে বেনাপোল কাস্টম হাউজের অতিরিক্ত কমিশনার সৈয়দ নিয়ামুল ইসলাম জানান, কয়েক বছর ধরে বেনাপোল দিয়ে কম শুল্কযুক্ত পণ্য বেশি আমদানি হওয়ার কারণে রাজস্ব আদায় কম হচ্ছে। তার ওপর করোনার ধাক্কা লেগেছে। বন্দরটি সচল থাকলে চলতি অর্থবছরে রাজস্ব আয় বাড়বে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এদিকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে আমদানি করা পণ্যের জন্য নির্ধারিত পণ্যাগার ভাড়ায় ধস নেমেছে। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে পণ্যাগার ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছিল ৯৫ কোটি ৮ লাখ টাকা। তার বিপরীতে আদায় হয়েছে ৮৪ কোটি ১৯ লাখ টাকা। অর্থাৎ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১১ কোটি ৬ লাখ টাকার রাজস্ব কম আদায় হয়েছে। বন্দর সূত্রে জানা যায়, ভারত থেকে আমদানীকৃত পণ্য প্রথম অবস্থায় বেনাপোল বন্দরের ওয়্যারহাউজে (পণ্যাগারে) রাখা হয়। এ সময় ওইসব আমদানি পণ্য রক্ষণাবেক্ষণ ও পণ্যাগার ভাড়া বাবদ বন্দর কর্তৃপক্ষ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নির্ধারিত পরিমাণে রাজস্ব আদায় করে থাকে। বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান জানান, বেনাপোল বন্দরের বর্তমান ধারণক্ষমতা প্রায় ৫০ হাজার টন। তবে এখানে সবসময় পণ্য থাকে প্রায় দেড় লাখ টন। চাহিদার অনুপাতে জায়গা না থাকায় ভারত থেকে আমদানীকৃত মূল্যবান সামগ্রী রাখতে হয় খোলা আকাশের নিচে। এতে সুবিধাবঞ্চিত হয়ে অনেক ব্যবসায়ী এ বন্দর ছেড়ে বাণিজ্য করছেন অন্য বন্দরে। ফলে এ বন্দর কাঙ্ক্ষিত রাজস্ব অর্জন ব্যর্থ হচ্ছে। বেনাপোল আমদানি-রফতানিকারক সমিতির সভাপতি মহসিন মিলন বলেন, এ পথে রাজস্ব আয় বাড়াতে হলে বন্দরের অবকাঠামো উন্নয়ন বাড়াতে হবে। এছাড়া বন্দরে বারবার রহস্যজনক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় অনেক ব্যবসায়ী পুঁজি হারিয়ে পথে বসেছেন। বন্দর কর্তৃপক্ষ তাদের কোনো ক্ষতিপূরণ না দেয়ায় তারা এ বন্দর ছেড়েছেন। বেনাপোল বন্দর পরিচালক (ট্রাফিক) আব্দুল জলিল বলেন, করোনার কারণে প্রায় আড়াই মাস ধরে আমদানি বন্ধ ছিল। এজন্য রাজস্ব ঘাটতি হয়েছে। আর এরই মধ্যে বেনাপোল বন্দরে অনেক অবকাঠামো উন্নয়ন হয়েছে। এছাড়া আরো যে উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে, এর মধ্যে রয়েছে বন্দরে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, বন্দরের চারদিকে উঁচু প্রাচীর নির্মাণ এবং নতুন জায়গা অধিগ্রহণ। এসব উন্নয়নকাজ সম্পন্ন হলে বেনাপোল বন্দর বিশ্বের কাছে একটি আধুনিক বন্দর হিসেবে পরিচিতি পাবে। তখন আমদানি বৃদ্ধির পাশাপাশি রাজস্বও বাড়বে। উল্লেখ্য, দেশে স্থলপথে যে পণ্য আমদানি হয়, তার ৭০ শতাংশ হয়ে থাকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে। প্রতি বছর এ বন্দর দিয়ে প্রায় ৬০ হাজার কোটি টাকার পণ্য আমদানি হয়, যা থেকে সরকার প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয় করে। আমদানি পণ্যের মধ্যে শিল্প-কারখানার কাঁচামাল, গার্মেন্ট, তৈরি পোশাক, কেমিক্যাল ও বিভিন্ন ধরনের খাদ্যসামগ্রী রয়েছে। তবে এ পথে আমদানি কমলেও দিন দিন বাড়ছে রফতানি বাণিজ্য। বন্দর দিয়ে ভারতে প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকা মূল্যের বিভিন্ন পণ্য রফতানি হয়। রফতানি পণ্যের মধ্যে পাট ও পাটজাত পণ্য, তৈরি পোশাক, কেমিক্যাল, টিস্যু, চালের কুঁড়া, মেহগনি ফল, মাছ, অক্সিজেনসহ প্রায় ৩০ প্রকারের পণ্য রয়েছে।

‘ডিজিটাল হাট’ থেকে গরু কিনলেন তিন মন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: করোনাভাইরাস মহামারীকালে কোরবানির পশু কেনাবেচার অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘ডিজিটাল হাট’ থেকে গরু কিনলেন সরকারের তিন…

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩৬ বিলিয়ন ডলার ছাড়াল

নিউজ ডেস্কঃ করোনা ভাইরাসের মহামারীর মধ্যে আগের সব অর্জনকে হার মানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ…

Show Buttons
Hide Buttons